Friday, May-29, 2020, 04:44 PM
Breaking News
Download http://bigtheme.net/joomla Free Templates Joomla! 3
Home / জেলার খবর / বিয়ের চার মাস না যেতেই সৃজিত-মিথিলা থাকছেন আলাদা!

বিয়ের চার মাস না যেতেই সৃজিত-মিথিলা থাকছেন আলাদা!

সময় যেন কাটতেই চাইছে না সৃজিত-মিথিলার। বিয়ের পরবর্তী সময়গুলো যেখানে আনন্দে খোশ মেজাজে ঘুরেফিরে কাটানো কথা, সেখানে তাদের সময় কাটছে লকডাউনে পৃথক দুটি দেশে ঘরে বন্দি হয়ে। করোনাভাইরাসের প্রকপে দমবন্ধ সময়গুলো কাটছে একে অপরকে মিস করে।

আর বারবার সেই কথাই জানান দিচ্ছেন তারা। তাদের মন খারাপের দিন-রাতগুলোর দীর্ঘশ্বাস যেন ভেসে বেড়াচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ঘরেবন্দি হয়ে কখনো বিয়ের নানা আয়োজনের ছবি প্রকাশ করছেন, কখনো ভিডিও প্রকাশ করছেন।

৬ এপ্রিল সৃজিত তার ফেসবুক পেজে প্রকাশ করেন তাদের বিয়ের রিসিপসন পার্টির ভিডিও। পরে মিথিলাও তার ইনস্টাগ্রামে সেই ভিডিও শেয়ার করে লিখেছেন, ‘বসন্ত এসেছিলো’।

এ ভিডিওটি প্রকাশের আগে বিয়ের একটি ছবি পোস্ট করে মিথিলা লিখেছেন, প্রহর শেষের আলোয় রাঙা সেদিন চৈত্রমাস তোমার চোখে দেখেছিলাম আমার সর্বনাশ।

গত ডিসেম্বর মাসে হঠাৎ করেই বিয়ে সেরে ফেলেন সৃজিত-মিথিলা। বিয়ের চার মাস পার হতে না হতেই করোনাভাইরাস তাদের আলাদা থাকতে বাধ্য করেছে। বিয়ের পর বেশ কাটছিল তাদের সময়গুলো। কখনো সৃজিত বাংলাদেশে আসছিলেন মিথিলাদের বাড়িতে, কখনো মিথিলা ভারতে যাচ্ছিলেন শ্বশুরালয়ে।

কিন্ত কী আর করার আছে! বিয়ের রিসেপশনের পর সৃজিত আফ্রিকায় যান শুটিং করতে। অন্যদিকে মেয়ে আইরাকে নিয়ে বাংলাদেশে ফিরে আসেন মিথিলা। কিন্তু করোনার কারণে আর দেখা হয়নি তাদের।

করোনার লকডাউনের জেরে আপাতত বন্ধ আছে সব ফ্লাইট ও গাড়ি চলাচল। ফলে আফ্রিকা থেকে তড়িঘড়ি দেশে ফিরে এলেও, মিথিলার দেখা পাননি সৃজিত। মিথিলা বাংলাদেশেই আছেন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ভয় পেরিয়ে আবার কবে আবার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে বিমান চলাচল করবে, সেই আশাতেই আছেন এই দম্পতি।

Check Also

১ জুন থেকে অভ্যন্তরীণ, ১৫ জুনের পর আন্তর্জাতিক ফ্লাইট

১ জুন থেকে সীমিত পরিসরে দেশের অভ্যন্তরে ঢাকা থেকে তিনটি জেলায় বিমান চলাচলের অনুমতি দিয়েছে …

আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে দেশে ফেরত গেলেন শতাধিক ভারতীয় নাগরিক

করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে আটকে পড়া নিজ দেশের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেয়া অব্যাহত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *